Hoop PlusBengali Serial

বাংলায় চলেনি ভাগ্যের চাকা, মুম্বইয়ে গ্ল্যামারের দাপট দেখাচ্ছেন রাজের নায়িকা

Advertisements

অভিনয় জগৎ সহজ নয়। এখানে টিকে থাকতে হলে প্রয়োজন দক্ষতা। ছোটপর্দার অভিনেতা অভিনেত্রীদের (Television Actress) ভাগ্য নির্ধারণ করে টিআরপি। বিভিন্ন সিরিয়াল শুরু হলেও নির্দিষ্ট স্লটে টিকে থাকবে কিনা তা নির্ধারণ করে টিআরপি। তেমনি অভিনেতা অভিনেত্রীদের ভাগ্যও নির্ভর করে এর উপরে। এমন অনেক অভিনেতা অভিনেত্রীই রয়েছেন, যারা পরপর সিরিয়ালে অভিনয় করলেও যথেষ্ট টিআরপি তুলতে ব্যর্থ হয়েছেন। এমতাবস্থায় অনেকেই বাংলা ইন্ডাস্ট্রি ছেড়ে পাড়ি জমিয়েছেন হিন্দি বিনোদন জগতে। এমনই একজন অভিনেত্রী হলেন অদ্রিজা রায় (Adrija Roy)।

কেরিয়ারের শুরুটা বাংলা ইন্ডাস্ট্রি থেকেই করেছিলেন অদ্রিজা। কাজ করেছেন সিরিয়াল, সিনেমা দুই মাধ্যমেই। ধারাবাহিকে মুখ্য চরিত্রে অভিনয়ের পাশাপাশি অভিনয় করেছেন ‘পরিণীতা’ ছবির পার্শ্ব চরিত্রে। স্ক্রিন শেয়ার করেছেন শুভশ্রী গঙ্গোপাধ্যায়, ঋত্বিক চক্রবর্তীর মতো খ্যাতনামা অভিনেতা অভিনেত্রীদের সঙ্গে। কিন্তু সিরিয়ালে যথাযথ টিআরপি তুলতে ব্যর্থ হন অদ্রিজা। বর্তমানে তিনি হিন্দি টেলিভিশনের পরিচিত নায়িকা।

বাংলায় চলেনি ভাগ্যের চাকা, মুম্বইয়ে গ্ল্যামারের দাপট দেখাচ্ছেন রাজের নায়িকা

বেশ কয়েক বছর আগেই মুম্বই পাড়ি দিয়েছিলেন অদ্রিজা। ইতিমধ্যেই কয়েকটি হিন্দি সিরিয়ালে মুখ্য চরিত্রে অভিনয় করে ফেলেছেন তিনি। পেয়েছেন প্রাপ্য সম্মান। হাতে উঠেছে পুরস্কারও। এই মুহূর্তেও জনপ্রিয় হিন্দি সিরিয়াল ‘ইমলি’তে মুখ্য চরিত্রে অভিনয় করছেন তিনি। দর্শকরা বেশ পছন্দ করেন এই ধারাবাহিকটি। পাশাপাশি সোশ্যাল মিডিয়াতেও সক্রিয় থাকেন অদ্রিজা। মুম্বই, কলকাতা দুই শহরের অনুরাগীদের জন্যই শেয়ার করে থাকেন নানান ছবি, ভিডিও।

সম্প্রতি দুটি ছবি শেয়ার করেছেন অদ্রিজা। লেপার্ড প্রিন্টের অফ শোল্ডার ড্রেস পরেছেন তিনি। চুল বাঁধা পনিটেলে, চোখে সানগ্লাস। সবুজ ঘাসের উপরে বসে লেন্স বন্দি হয়েছেন অভিনেত্রী। তাঁর পোস্ট দেখেই জানা গিয়েছে, ছবিগুলি তোলা হয়েছে মুম্বইতে। ইতিমধ্যেই ৯ হাজার ছুঁতে চলেছে এই পোস্টে লাইকের সংখ্যা। অদ্রিজার ছবি দেখে মুগ্ধ নেটিজেনরাও। তাঁকে নতুন বাংলা সিরিয়ালে দেখার জন্য অপেক্ষায় রয়েছেন অনুরাগীরা। তবে তিনি আবার কবে বাংলায় ফিরবেন বা আদৌ ফিরবেন কিনা তা জানা যায়নি।

Nirajana Nag

আমি নীরাজনা নাগ। HoopHaap-এর একজন সাংবাদিক। বিগত চার বছর ধরে এই পেশার সঙ্গে যুক্ত রয়েছি। নিজের লেখার মাধ্যমে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাঠকদের কাছে পৌঁছে দিতে চাই