whatsapp channel

Geeta Kapur: ‘মোষের মতো মোটা’, ভারী চেহারার কারণে কটাক্ষের শিকার গীতা মা

গীতা কাপুর (Geeta Kapur) বর্তমানে বলিউডের নামী কোরিওগ্রাফারদের মধ্যে অন্যতম। করণ জোহর (Karan Johar) নির্মিত ফিল্ম ‘কুছ কুছ হোতা হ্যায়’-তে ‘তুঝে ইয়াদ না মেরি আয়ি’ গানে এক ঝলক তাঁর দেখা…

Avatar

Nilanjana Pande

গীতা কাপুর (Geeta Kapur) বর্তমানে বলিউডের নামী কোরিওগ্রাফারদের মধ্যে অন্যতম। করণ জোহর (Karan Johar) নির্মিত ফিল্ম ‘কুছ কুছ হোতা হ্যায়’-তে ‘তুঝে ইয়াদ না মেরি আয়ি’ গানে এক ঝলক তাঁর দেখা মিলেছিল। বর্তমানে একাধিক রিয়েলিটি শোয়ের বিচারকের আসনে দেখা যায় তাঁকে। ডান্স কোরিওগ্রাফারদের মতো তন্বী কোনও কালেই ছিলেন না গীতা। বরং তিনি একটু স্থূলকায়া। কিন্তু গীতার নৃত্যশৈলী অসাধারণ। এহেন নামী কোরিওগ্রাফারকেও এককালে বডি শেমিং-এর শিকার হতে হয়েছিল।

সম্প্রতি মণীশ পল (Maniesh Paul)-এর পডকাস্টে এই প্রসঙ্গে কথা বললেন গীতা। তিনি জানালেন, 2008 সালে শুরু হয়েছিল জি টিভির ডান্স রিয়েলিটি শো ‘ডান্স ইন্ডিয়া ডান্স’। সেই সময় থেকেই এই শোয়ে বিচারকের আসনে রয়েছেন গীতা। তাঁর পাশাপাশি রয়েছেন রেমো ডি’সুজা (Remo D’Souza), টেরেন্স লুইস (Terence Louis)-রা। বিচারক হিসাবে ‘ডান্স ইন্ডিয়া ডান্স’-এই প্রথমবার আত্মপ্রকাশ করেছিলেন গীতা। সেই সময় এই শোয়ের গ্র্যান্ড মাস্টার ছিলেন মিঠুন চক্রবর্তী (Mithun Chakraborty)। বিচারক হিসাবে তাঁর অভিজ্ঞতার কথা বলতে গিয়ে গীতা জানালেন, প্রায়ই তাঁর চেহারার প্রতি অশ্লীল কটাক্ষ করে আসত ই-মেল। দর্শকদের একাংশ এই ধরনের ই-মেল করে গীতাকে লিখতেন, রেমো ও টেরেন্সের মতো আকর্ষক দুই পুরুষের পাশে তিনি মোষের মতো মোটা। মানসিক অবসাদ গ্রাস করেছিল গীতাকে। তিনি নিজেও হীনমন্যতায় ভুগতে শুরু করেন। কিন্তু হার মানেননি গীতা।

গীতা জানান, কেউ তাঁর পরিশ্রম লক্ষ্য করেননি। তাঁরা তাঁর চেহারা নিয়ে বিচার করতেই ব্যস্ত ছিলেন। গীতা বলিউডে কেরিয়ার শুরু করেছিলেন ফারহা খান (Farha Khan)-এর সহকারী কোরিওগ্রাফার হিসাবে। এরপর ধীরে ধীরে তিনি নিজেই কোরিওগ্রাফি করতে শুরু করেন।

বর্তমানে পঞ্চাশের কোঠায় পৌঁছেও তিনি সকলের প্রিয় ‘গীতা মা’। স্পষ্টকথনের জন্য গীতা যথেষ্ট বিখ্যাত। পাশাপাশি তাঁর চুলচেরা বিশ্লেষণের উপর ভরসা রয়েছে সকলের।

 

View this post on Instagram

 

A post shared by Geetakapur (@geeta_kapurofficial)