whatsapp channel

কাজল-রানির ক্যাট ফাইট নিয়ে হাটে হাঁড়ি ভাঙলেন করণ জোহর

কাজল (Kajol) ও রানি মুখার্জী (Rani Mukherjee)-র প্রথম স্ক্রিন শেয়ার করণ জোহর (Karan Johar) নির্মিত ‘কুছ কুছ হোতা হ্যায়’ ফিল্মে। তাঁরা তুতো বোন শুনে সেই সময় অনেকেই আশা করেছিলেন, কাজল…

Avatar

Nilanjana Pande

কাজল (Kajol) ও রানি মুখার্জী (Rani Mukherjee)-র প্রথম স্ক্রিন শেয়ার করণ জোহর (Karan Johar) নির্মিত ‘কুছ কুছ হোতা হ্যায়’ ফিল্মে। তাঁরা তুতো বোন শুনে সেই সময় অনেকেই আশা করেছিলেন, কাজল ও রানির সম্পর্কে দেখা যাবে অপূর্ব রসায়ন। কিন্তু কার্যতঃ তা ঘটেনি। আইকনিক হয়ে থেকে গিয়েছে ‘কুছ কুছ হোতা হ্যায়’। অঞ্জলি ও টিনার সম্পর্কের ভিত হয়ে গিয়েছে অনবদ্য। কিন্তু বাস্তবে কাজল ও রানির মধ্যে চলেছে ঠান্ডা লড়াই। বলিউডের নাড়িনক্ষত্র নখদর্পণে রাখা করণ জোহরও একসময় রীতিমত ঘাবড়ে গিয়েছিলেন এই ঠান্ডা লড়াই অনুভব করে। তবে এই ঠান্ডা লড়াইকেই করণ বানালেন ‘কফি উইথ করণ’-কে হিট করার হাতিয়ার। বাধা দিতে পারলেন না কাজল ও রানি।

‘কফি উইথ করণ’-এর সাম্প্রতিক পর্বে করণের অতিথি হয়ে এসেছিলেন কাজল ও রানি। সঞ্চালকের সামনে বসে একের পর এক প্রশ্নের সপ্রতিভ উত্তর দিয়েছেন তাঁরা। করণ নিজেই জানিয়েছেন, ‘কুছ কুছ হোতা হ্যায়’-এর সেটে দুই বোনকে দেখে তাঁর মনে প্রশ্ন জেগেছিল, তাঁরা কেন একে অপরের সাথে কথা বলেন না! এমনকি তাঁদের পরিবার নিয়েও প্রশ্ন উঠেছিল করণের মনে। এত বছর পর তা কাজল ও রানির সামনে ব্যক্ত করলেন তিনি। কাজলের মতে, ওই দূরত্ব অর্গানিক। তাঁরা দুই বোন কর্মক্ষেত্রে ওই পরিবেশ পছন্দ করতেন। রানি বললেন, শৈশব থেকেই কাজলকে তিনি দিদি বলে চিনলেও তাঁদের মধ্যে দেখা-সাক্ষাৎ প্রায় হত না বললেই চলে। কারণ কাজল পড়তেন পঞ্চগনির বোর্ডিং স্কুলে। কিন্তু রানিরা থাকতেন জুহুতে।

মুম্বইয়ে থাকতেন কাজলের বোন তানিশা (Tanisha)। তানিশার সাথে রানির বয়সের ব্যবধান যথেষ্ট কম। ফলে বন্ধু হয়ে উঠেছিলেন তাঁরা। কাজল অবশ্য পরিবারের ছেলেদের ঘনিষ্ঠ ছিলেন। কিন্তু ঘটনাচক্রে কাজলের বাবা সমু মুখার্জী (Somu Mukherjee) ও রানির বাবা রাম মুখার্জি (Raam Mukherjee)-এর প্রয়াণের পর দুই বোন কাছাকাছি আসেন। সমুর ঘনিষ্ঠ ছিলেন রানি। তিনি বলেন, কাছের মানুষকে চিরতরে হারিয়ে ফেলার কঠিন সময়ে তাঁরা পরিবারের সদস্যরাই একে অপরের পাশে দাঁড়িয়েছিলেন।

বর্তমানে একসাথেই মুখার্জী পরিবারের দুর্গাপুজোয় দেখা যায় কাজল ও রানিকে। থাকেন তানিশাও। কাজলের মা তনুজা (Tanuja)-ও রানিকে নিজের মেয়ের মতোই ভালোবাসেন। দুই বোনের ঘটনা প্রমাণ করে দেয়, সময়ের তুলনায় শক্তিশালী আর কিছুই নেই।

 

View this post on Instagram

 

A post shared by Karan Johar (@karanjohar)