whatsapp channel

Vastu: পায়রার পালকেই ফিরবে হারানো সৌভাগ্য, টাকা আসবে দু হাতে

সংসার এবং বাড়ির মধ্যে এবং আশেপাশে থাকা সজীব এবং জড় সব বস্তুরই কোনো না কোনো প্রভাব রয়েছে মানুষের জীবনে। প্রতিটি জিনিসই সংসার এবং সেই সংসারের মানুষদের উপরে ইতি বা নেতিবাচক…

Avatar

Nirajana Nag

সংসার এবং বাড়ির মধ্যে এবং আশেপাশে থাকা সজীব এবং জড় সব বস্তুরই কোনো না কোনো প্রভাব রয়েছে মানুষের জীবনে। প্রতিটি জিনিসই সংসার এবং সেই সংসারের মানুষদের উপরে ইতি বা নেতিবাচক প্রভাব ফেলে। এই সবকিছুই বিস্তারিত ভাবে বর্ণিত রয়েছে বাস্তুশাস্ত্রে (Vastu)। এমনকি বেশ কিছু প্রাণী সম্পর্কেও বাস্তুশাস্ত্রে বিশেষ কিছু তথ্য দেওয়া রয়েছে। কোন প্রাণীর বাড়িতে আগমন শুভ, আর কোন প্রাণীকে অশুভ বলে মানা হয় সবটাই উল্লিখিত রয়েছে বাস্তুশাস্ত্রে।

বাড়িতে সাধারণত যেসব পশুপাখি আসে তার মধ্যে অন্যতম হল পায়রা (Pigeon)। বাড়িতে অনেক সময়ই আসা যাওয়া লেগে থাকে পায়রার। আবার অনেক বাড়িতে রীতিমতো বাসা বানিয়ে ফেলে এই পাখি। কিন্তু বাস্তু অনুযায়ী, এই পাখি বাড়িতে আনাগোনা ভালো নাকি খারাপ? জানলে অবাক হবেন, বিশেষজ্ঞরা বলেন যে বাড়িতে পায়রার পালক রাখলে আর্থিক অবস্থার উন্নতি হয়, ঋণমুক্তি হয়। পায়রার পালক বাড়িতে ইতিবাচক শক্তিকে ডেকে আনে বলে মত বিশেষজ্ঞদের।

Vastu: পায়রার পালকেই ফিরবে হারানো সৌভাগ্য, টাকা আসবে দু হাতে

পায়রাকে ঈশ্বরের দূত মনে করা হয়। পায়রা ঘরে আসার অর্থ জীবনে কোনো সুখবর আসতে চলেছে। অনেক বাড়িতে পায়রা এসে ডিম পাড়ে। বিশেষজ্ঞদের মতে, এটি ইঙ্গিত দেয় যে পরিবারে কোনো সুখবর আসতে পারে। মনে করা হয়, বাড়িতে এসে যদি পায়রা পালক রেখে যায় তাহলে তার অর্থ হল এটি তার উপহার।

Vastu: পায়রার পালকেই ফিরবে হারানো সৌভাগ্য, টাকা আসবে দু হাতে

আরো বলা হয়, সাদা কিংবা লাল কাপড়ে পায়রার পালক বেঁধে লাল সুতো পালকে সাত বার জড়িয়ে দেবী লক্ষ্মীর নাম স্মরণ করলে তিনি তুষ্ট হন। এই পালক রাখতে হবে এমন জায়গায় যেখানে বাইরের কারোর নজর না পড়ে। দীর্ঘদিন ধরে ঋণের সমস্যা থাকলে তিনটি পায়রার পালক নিয়ে ঘরের বিভিন্ন কোণে রাখতে হবে। বসার ঘরের দক্ষিণ কোণে রাখতে হবে একটি পালক। আরেকটি পালক রাখতে হবে রান্নাঘরের উত্তর কোণে। শোওয়ার ঘরের পূর্ব কোণে রাখতে হবে তৃতীয় পালকটি। বৃহস্পতিবার একটি হলুদ কাপড়ের মধ্যে পায়রার পালক এবং গুঁড়ি সহ হলুদ গুঁড়ো রাখলে চাকরি পাওয়ার সম্ভাবনা বাড়ে।

Disclaimer: বাস্তুবিদদের পরামর্শ ও মতামতের ভিত্তিতে প্রতিবেদনটি লেখা হয়েছে। ব্যক্তিবিশেষে এর ফল ভিন্ন হতে পারে।

Avatar

আমি নীরাজনা নাগ। HoopHaap-এর একজন সাংবাদিক। বিগত চার বছর ধরে এই পেশার সঙ্গে যুক্ত রয়েছি। নিজের লেখার মাধ্যমে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাঠকদের কাছে পৌঁছে দিতে চাই