whatsapp channel

হাঁটু গেড়ে বসে সোনু সুদের কাছে সাহায্য প্রার্থনা দরিদ্র কিশোরের, মুহূর্তে এগিয়ে এলেন অভিনেতা

করোনা যুদ্ধে গত বছর থেকেই সামিল হয়েছিলেন অভিনেতা সোনু সুদ (sonu sood)। পরিযায়ী শ্রমিকদের ঘরে ফিরিয়েছিলেন তিনি। এবার সোনু সুদ উদ্যোগ নিচ্ছেন শিক্ষাক্ষেত্রে সাহায্য করার। কিছুদিন আগেই একটি মেয়ে সোনুকে…

Avatar

HoopHaap Digital Media

করোনা যুদ্ধে গত বছর থেকেই সামিল হয়েছিলেন অভিনেতা সোনু সুদ (sonu sood)। পরিযায়ী শ্রমিকদের ঘরে ফিরিয়েছিলেন তিনি। এবার সোনু সুদ উদ্যোগ নিচ্ছেন শিক্ষাক্ষেত্রে সাহায্য করার। কিছুদিন আগেই একটি মেয়ে সোনুকে জানিয়েছেন, তিনি ভবিষ্যতে আরো পড়াশোনা করতে চান। সোনু তৎক্ষণাৎ মেয়েটিকে নিজের ফোন নম্বর দেন। এবার একজন টিনএজ ছেলে সোনুর সামনে হাঁটু গেড়ে বসে সাহায্য চাইলেন।

ঘটনাটি ঘটেছে সোনুর বাড়ির বাইরে। সোনু বাড়ির বাইরে এসে দরিদ্র মানুষদের সাথে কথা বলছিলেন। সেই সময় হঠাৎই একটি কিশোর সোনুর কাছে এসে হাতজোড় করে হাঁটু গেড়ে বসে পড়েন। সোনু তাঁকে জিজ্ঞাসা করেন, কেন তিনি এমন করছেন! সোনুর দেহরক্ষীরা কিশোরকে ধরে উঠিয়ে তাঁকে সামাজিক দূরত্ব বিধি বজায় রেখে দাঁড় করিয়ে দেন। এরপর সেই কিশোর সোনুকে সমস্যার কথা বললে সোনু তৎক্ষণাৎ তাঁকে সাহায্য করেন।

কয়েকদিন আগে এক ব্যক্তি তাঁর ভাই আয়ুশ রাজ (Ayush Raj)-এর হার্ট অপারেশনের জন্য 5-6 লাখ টাকা সাহায্য চেয়েছিলেন। সোনু বলেছিলেন, হৃদয়ের ব্যাপার, ফলে সাহায্য করা উচিত। সোনু সেই ব্যক্তিকে সাহায্য করেছিলেন। এর আগে সোনু এয়ার-অ্যাম্বুলেন্সের মাধ্যমে একজন রেলকর্মীর কন্যা ভারতী (bharati)-কে পাঠিয়েছিলেন হায়দরাবাদ অ্যাপোলো হসপিটালে। সেখানে ভারতীর যাবতীয় ট্রিটমেন্টের ব্যবস্থাও করেছিলেন সোনু। কিন্তু শেষরক্ষা হয়নি। সবার সব প্রচেষ্টা ব্যর্থ করে মারা গেছেন ভারতী। সোনু ভারতীর মৃত্যুতে শোকপ্রকাশ করেছিলেন।

রাতে জরুরী ফোন পেয়ে দ্রুত অক্সিজেনের ব্যবস্থা করে বাইশ জন করোনা রোগীর প্রাণ বাঁচিয়েছেন সোনু সুদ ও তাঁর টিম। সম্প্রতি সোনু সুদের সংস্থার কাছে ফোন করে একজন ইন্সপেক্টর জানান, ব‍্যাঙ্গালোরের আরাক হসপিটালে অক্সিজেনের সঙ্কট দেখা দিয়েছে। এমনকি অক্সিজেনের অভাবে হসপিটালের দুইজন রোগীর মৃত্যুও হয়েছে। এই ফোন পেয়েই দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ করেন সোনু সুদের টিমের সদস্যরা। কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই পনেরোটি অক্সিজেন সিলিন্ডার জোগাড় করে বাইশ জন করোনা রোগীর প্রাণ বাঁচিয়েছেন তাঁরা। সোনু জানিয়েছেন, জাতীয় সঙ্কটে দেশবাসীর পাশে দাঁড়াতে তিনি বদ্ধপরিকর। সোনু বলেন, ফোন পাওয়া মাত্রই তাঁর টিমের সদস্যরা দ্রুত ব্যবস্থা নিয়েছেন নাহলে বহু পরিবার তাঁর প্রিয়জনের হারাতেন। সোনুর টিমের সদস্যদের সাহায্য করার জন্য এগিয়ে এসেছেন পুলিশকর্মীরাও। রোগীকে স্থানান্তরিত করার সময় অ্যাম্বুল্যান্স না পাওয়া গেলে পুলিশের গাড়িতেই স্থানান্তরকরণ করা হয়।

গত বছর থেকেই করোনা মোকাবিলায় সাহায্যের হাত বাড়িয়েছিলেন সোনু ও তাঁর টিম। সম্প্রতি করোনা ভ‍্যাকসিন নিয়ে সচেতনতামূলক অভিযান চালানো শুরু করেছেন সোনু সুদ ও তাঁর টিমের সদস্যরা। এই অভিযানটির নাম তাঁরা রেখেছেন ‘সঞ্জীবনী, আ শর্ট লাইফ’।

 

View this post on Instagram

 

A post shared by F I L M Y G Y A N (@filmygyan)

Avatar