Hoop PlusBengali Serial

উচ্ছেবাবুর সঙ্গে বিয়েতে নো কার্পণ্য, অভিজাত ব্যাঙ্কোয়েটের পেছনে কত খরচ করলেন কৌশাম্বী!

Advertisements

টেলি পাড়ার অন্দরে কান পাতলেই এখন শোনা যাচ্ছে প্রস্তুতি পর্বের ব্যস্ততা। এতদিন যা আড়ালে ছিল, এখন সেটাই চলে এসেছে প্রকাশ্যে। আমজনতার অনুমান সত্যি করে বিয়ের পিঁড়িতে বসছেন অভিনেতা আদৃত রায় (Adrit Roy)। ‘মিঠাই’ এর সেটেই নিজের জীবনসঙ্গিনীকে খু্ঁজে নিয়েছিলেন তিনি। এবার অনস্ক্রিন ‘দিদিয়া’ কৌশাম্বী চক্রবর্তীর (Kaushambi Chakraborty) সঙ্গে বাস্তবে বিয়ে সারার কথা। জোরকদমে চলছে তারই প্রস্তুতি।

আগামী ৯ই মে বিয়ে করছেন আদৃত কৌশাম্বী। হাওড়ার মেয়ে রামরাজাতলার একটি সুদৃশ্য ব্যাঙ্কোয়েট বেছে নিয়েছেন বিয়ের জন্য। জানা গিয়েছে, জেলার মধ্যে অন্যতম নামী এই ব্যাঙ্কোয়েট। স্বাভাবিক ভাবেই ব্যাঙ্কোয়েটের বুকিং খরচটাও আকাশছোঁয়া। জানা যাচ্ছে, ডেকোরেশন এবং মেনু মিলিয়ে ৩০০ জনের জন্য খরচ পড়তে পারে প্রায় সাড়ে পাঁচ লক্ষ টাকা। অতিথিদের রসনা তৃপ্তিতে আমিষ এবং নিরামিষ দু রকম মেনুর ব্যবস্থাই রয়েছে। আর কৌশাম্বী তো জানিয়েই দিয়েছেন, তাঁর বিয়ের মেনুতে ফিশফ্রাই আর বিরিয়ানি থাকবেই।

উচ্ছেবাবুর সঙ্গে বিয়েতে নো কার্পণ্য, অভিজাত ব্যাঙ্কোয়েটের পেছনে কত খরচ করলেন কৌশাম্বী!

 

জানা যাচ্ছে, আমিষ প্লেটের জন্য খরচ মোটামুটি ১০০-১২০০ টাকা প্লেট প্রতি, আবার নিরামিষ প্লেটের জন্য খরচ পড়বে প্রায় ১৫০০-১৮০০ টাকা প্লেট প্রতি। ভেনুর অন্দরে পছন্দসই ফুলের সাজের জন্যও আবার পড়বে অতিরিক্ত খরচ। অন্যদিকে ১১ ই মে দক্ষিণ কলকাতার এক ক্লাব হতে চলেছে আদৃত কৌশাম্বীর রিসেপশনের অনুষ্ঠান।

উচ্ছেবাবুর সঙ্গে বিয়েতে নো কার্পণ্য, অভিজাত ব্যাঙ্কোয়েটের পেছনে কত খরচ করলেন কৌশাম্বী!

ইতিমধ্যেই পাত্রপাত্রীর বিয়ের কার্ডের ছবিও প্রকাশ্যে এসে গিয়েছে। এবার ভাইরাল হল রিসেপশন কার্ডের ছবি। বিয়ের জন্য কৌশাম্বীর পরিবার বেছে নিয়েছে লাল সোনালি রঙা সাবেকি ঘরানার কার্ড। কিন্তু রিসেপশনের কার্ডে দেখা গেল চমক। সাদা খামের মধ্যে একটি স্বচ্ছ কার্ডে সোনালি অক্ষরে লেখা পাত্র পাত্রীর পরিচয়, রিসেপশনের দিন ক্ষণ। সুদৃশ্য কার্ডটির সঙ্গে থাকছে আরো এক চমক। নিমন্ত্রিতদের একটি রূপোর সিদ্ধিদাতা গণেশের ছোট্ট মূর্তিও দিয়েছেন আদৃত। রিসেপশনের আমন্ত্রণের এই চমকপ্রদ ভিডিও ইতিমধ্যে ভাইরাল হয়েছে আদৃতের ফ্যানপেজের তরফে। প্রিয় গাড়ি ‘থার’এ চেপেই বিয়ে করতে যাবেন আদৃত।

 

View this post on Instagram

 

A post shared by Tonni Laha Roy (@roytonni)

Nirajana Nag

আমি নীরাজনা নাগ। HoopHaap-এর একজন সাংবাদিক। বিগত চার বছর ধরে এই পেশার সঙ্গে যুক্ত রয়েছি। নিজের লেখার মাধ্যমে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাঠকদের কাছে পৌঁছে দিতে চাই