Hoop PlusTollywood

Paayel Sarkar: প্রেম করতে চেয়েও হচ্ছে না, বাবা মায়ের জন্যই ৪০ পেরিয়েও অবিবাহিত পায়েল

Advertisements

এক সময়ে টলিউডের প্রসঙ্গ উঠলেই নাম উঠত অভিনেত্রী পায়েল সরকারের (Paayel Sarkar)। একটা লম্বা সময় ধরে ইন্ডাস্ট্রিতে রাজত্ব করেছেন পায়েল। কাজ করেছেন দেব, জিৎ, সোহম চক্রবর্তী, আবির চট্টোপাধ্যায়দের মতো অভিনেতাদের সঙ্গে। যেকোনো চরিত্রেই অদ্ভূত সুন্দর ভাবে মিশে যেতেন পায়েল। তাঁর অভিনয় দেখে ভালো লাগেনি এমন মানুষ খুব কমই আছেন। এহেন পায়েলের ইন্ডাস্ট্রিতে প্রেম চর্চাও কম হয়নি।

সম্প্রতি দাদাগিরিতে এসেছিলেন পায়েল। সেখানেই সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের সামনে বিভিন্ন কথার মাঝে ব্যক্তিগত জীবন নিয়েও মুখ খোলেন তিনি। ৪০ পেরিয়েও এখনো অবিবাহিত পায়েল। তিনি জানান, প্রেম করতে চাইলেও তাঁর প্রেম হচ্ছে না। অনেকেই নাকি তাঁকে প্রশ্ন করেন, এখনো সিঙ্গেল কেন তিনি। পায়েলের কথায়, বাবা মায়ের জন্যই এখনো সিঙ্গেল তিনি।

Paayel Sarkar: প্রেম করতে চেয়েও হচ্ছে না, বাবা মায়ের জন্যই ৪০ পেরিয়েও অবিবাহিত পায়েল

অভিনেত্রীর মতে, বাঙালি পরিবারে মেয়েদের বাবারা নাকি খুব পজেসিভ। নিজের কথা তো ছেড়েই দিলেন, বাবা মায়ের মনের মতো ছেলেও নাকি পাচ্ছেন না তিনি। উদাহরণস্বরূপ পায়েল বলেন, সানা তো এখন অনেকটা বড় হয়েছে। হঠাৎ যদি কোনও দিন নিজের বয়ফ্রেন্ডকে এনে হাজির করেন সৌরভের সামনে, তাহলে তাঁর পৃথিবীটা ওলটপালট হয়ে যাবে। কিন্তু সৌরভের স্পষ্ট জবাব, পৃথিবী উলটে যাবে না। হ্যাঁ, মেয়ের বয়ফ্রেন্ডকে ১০ টা প্রশ্ন করবেন তিনি। তবে তাঁকে নিয়ে কোনো আপত্তি থাকবে না, স্পষ্ট কথা সৌরভের।

প্রসঙ্গত, এক সময় টলিপাড়ায় চর্চার কেন্দ্রে ছিল পরিচালক রাজ চক্রবর্তীর সঙ্গে পায়েলের সম্পর্কের গুঞ্জন। না, সম্পর্কের কথা কোনোদিনই খোলাখুলি ভাবে স্বীকার করেননি তাঁরা। তবে বিষয়টা চাপাও ছিল না কারোর কাছে। ইন্ডাস্ট্রিতে সকলেই এ ব্যাপারে অবগত ছিলেন। শোনা যায়, রাজের জীবনে মিমি চক্রবর্তী পা রাখার পরেই নাকি পায়েলের সঙ্গে দূরত্ব তৈরি হয় তাঁর। ‘বোঝে না সে বোঝে না’র সেটেই নাকি মিমি রাজের মধ্যে ঘনিষ্ঠতার সূত্রপাত হয়েছিল। শোনা যায়, ঘনিষ্ঠ মহলে পায়েল নাকি বলেছিলেন, জীবনকে দেখার দৃষ্টিভঙ্গি তাঁদের দুজনের আলাদা। প্রেমটা এমনিতেও টিকত না।

Nirajana Nag

আমি নীরাজনা নাগ। HoopHaap-এর একজন সাংবাদিক। বিগত চার বছর ধরে এই পেশার সঙ্গে যুক্ত রয়েছি। নিজের লেখার মাধ্যমে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাঠকদের কাছে পৌঁছে দিতে চাই