whatsapp channel

Subhashree Ganguly: ‘মা ছেলের সম্পর্ককে এভাবে…’ ইউভানের ঠোঁটে চুমু খেয়ে ট্রোলড শুভশ্রী

গতকাল, সোমবার ছিল দোল। মঙ্গলবারও হোলি উৎসবে মেতেছেন অনেকেই। রঙিন হয়ে যত দিন কাটানো যায় আর কী। সোশ্যাল মিডিয়ায় তারকাদের রঙে রাঙা ছবি দেখতে দেখতে মুগ্ধ নেটিজেনরা। কিন্তু গোল বাঁধল…

Avatar

Nirajana Nag

গতকাল, সোমবার ছিল দোল। মঙ্গলবারও হোলি উৎসবে মেতেছেন অনেকেই। রঙিন হয়ে যত দিন কাটানো যায় আর কী। সোশ্যাল মিডিয়ায় তারকাদের রঙে রাঙা ছবি দেখতে দেখতে মুগ্ধ নেটিজেনরা। কিন্তু গোল বাঁধল অভিনেত্রী শুভশ্রী গঙ্গোপাধ্যায়ের (Subhashree Ganguly) ছবি নিয়ে। ছেলে ইউভানের সঙ্গে তাঁর একটি ছবি দেখেই রে রে করে উঠল নেটপাড়ার একাংশ। আবারও ট্রোলের মুখে পড়লেন টলি অভিনেত্রী।

আপনজনদের সঙ্গে কমবেশি টলি তারকারা সকলেই দোল খেলেছেন। শুভশ্রীও বাদ যাননি। হালিশহরে রাজ চক্রবর্তীর পৈতৃক বাড়িতে এদিন রঙের উৎসবে মেতেছিলেন সবাই। গলায় পলাশের মালা পরে আবিরের রঙা রাঙা হয়ে উঠেছিলেন তারকা দম্পতি। সেই সব ছবিই সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করেছেন শুভশ্রী। কিন্তু তার মধ্যেই একটি ছবি দেখে ছিছিক্কার শুরু করেছেন নেটনাগরিকদের একাংশ।

Subhashree Ganguly: 'মা ছেলের সম্পর্ককে এভাবে...' ইউভানের ঠোঁটে চুমু খেয়ে ট্রোলড শুভশ্রী

ছবিতে দেখা গিয়েছে, ছোট্ট ছেলে ইউভানকে ঠোঁটে চুমু খাচ্ছেন শুভশ্রী। নিতান্তই মা ছেলের এক আদুরে ছবি। কিন্তু তা দেখেই মুখ বেঁকিয়েছেন কিছু মানুষ। শুভশ্রীর ছেলেকে আদর করার ধরণ মোটেই পছন্দ হয়নি তাদের। একজন লিখেছেন, ‘মা ছেলের সম্পর্ককে এই ভাবে ছোট না করলেও পারতেন। ছিঃ গালে বা কপালেও চুমুটা খাওয়া যেত’। আরেকজন লিখেছেন, ‘এত নোংরা ভাবে চুমু খাওয়ার দরকার ছিল কী!’ এমনকি শুভশ্রী আদৌ প্রকৃতিস্থ অবস্থায় ছিলেন কিনা তা নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন কয়েকজন।

তবে অভিনেত্রীর পাশে দাঁড়িয়ে সুর চড়ানো অনুরাগীদের সংখ্যাও কম নেই। নিন্দুকদের একহাত নিয়ে একজন লিখেছেন, ‘ও মাগো কারা এরা! মা আর ছেলের আদুরে চুমুকে নোংরা মন্তব্য করছে! আমার ছেলেও তো এই ভাবে মুখে চুমু খায়, কই কোনো তো আলাদা অনুভূতি আসে না’। আরেকজন লিখেছেন, ‘কত নোংরা মানুষ আছেন, এরা কি কখনো বাবা মায়ের ভালোবাসা পাননি!’ প্রসঙ্গত, এর আগেও বহুবার ট্রোলের মুখে পড়েছেন শুভশ্রী। প্রকাশ্যে লিপলক করে সমালোচনার মুখে পড়েছিলেন রাজ শুভশ্রী। কিন্তু কখনোই নেতিবাচতাকে পাত্তা দেননি তাঁরা।

Avatar

আমি নীরাজনা নাগ। HoopHaap-এর একজন সাংবাদিক। বিগত চার বছর ধরে এই পেশার সঙ্গে যুক্ত রয়েছি। নিজের লেখার মাধ্যমে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাঠকদের কাছে পৌঁছে দিতে চাই