whatsapp channel

কয়েক ফোঁটা এই তেলেই ফিরবে যৌবন, ৫০ পেরিয়েও থাকবেন সতেজ

সময় কারোর জন্যই থেমে থাকে না। তা অপরিবর্তনশীল। আর সময়ের সঙ্গে সঙ্গে পরিবর্তন ঘটতে থাকে বিভিন্ন বিষয়ের। বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে মানুষের শক্তি কমে, উদ্যম কমে। যৌবন (Youth) ছাড়িয়ে প্রৌঢ়ত্বে…

Avatar

Nirajana Nag

সময় কারোর জন্যই থেমে থাকে না। তা অপরিবর্তনশীল। আর সময়ের সঙ্গে সঙ্গে পরিবর্তন ঘটতে থাকে বিভিন্ন বিষয়ের। বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে মানুষের শক্তি কমে, উদ্যম কমে। যৌবন (Youth) ছাড়িয়ে প্রৌঢ়ত্বে পা দেওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ত্বক এবং স্বাস্থ্যেও আসে লক্ষণীয় পরিবর্তন। দীর্ঘদিন পর্যন্ত যৌবন ধরে রাখতে চান সকলেই। কিন্তু সম্পূর্ণ প্রাকৃতিক উপায়ে কীভাবে সম্ভব হবে তা? জানলে অবাক হবেন, মাত্র একটি উপাদানেই ৫০ পেরিয়েও যৌবনের মতো সতেজতা বজায় রাখা সম্ভব।

সেই উপাদানটি হল নারকেল তেল (Coconut Oil)। নারকেল থেকে বের করা এই তেল উচ্চমাত্রায় স্যাচুরেটেড। ১০০ শতাংশ ফ্যাট এবং ৮০-৯০ শতাংশ স্যাচুরেটেড ফ্যাট থাকে নারকেল তেলে। ত্বকের যৌবন ধরে রাখতে এই তেলের গুণাগুণ খুবই কার্যকরী। সেই কারণে দীর্ঘদিন ধরেই ত্বক এবং চুলের পরিচর্যায় নারকেল তেল ব্যবহার হয়ে আসছে। পাশাপাশি ভোজ্য তেল হিসেবেও ব্যবহার হয় এটি। হাতের তালুতে নারকেল তেল নিয়ে মুখে মাখলে ফিরে আসবে ত্বকের ঔজ্জ্বল্য। পাশাপাশি রোদ লেগে ত্বকের ক্ষতিও হবে না।

হাতের তালুতে কয়েক ফোঁটা নারকেল তেল নিয়ে আঙুল দিয়ে সারা মুখে ফোঁটা ফোঁটা করে লাগাতে হবে। তারপর হাতের তালুর চাপ দিয়ে ধীরে ধীরে ম্যাসাজ করতে হবে সারা মুখে। রাতে ঘুমানোর আগে নিয়মিত মুখে এই তেল ম্যাসাজ করতে পারলে মুখের গ্লো ফিরবে, সেই সঙ্গে ঘুমও হবে খুব ভালো। পরদিন সকালে ফেসওয়াশ দিয়ে মুখ ভালো করে পরিষ্কার করে ধুয়ে নিলেই তেলতেলে ভাব চলে যাবে। তবে ত্বক থাকবে মোলায়েম।

গরমকাল পড়ে গিয়েছে। বিভিন্ন কাজে বাইরে বেরোতেই হয়। আর রোদ বা অন্যান্য কারণে মুখে অনেক সময় দাগ ছোপ পড়তে দেখা যায়। নারকেল তেল ম্যাসাজে এই দাগ দূর হয় সহজেই। তবে নারকেল তেল দিনে একবারই মুখে মাখা ভালো। আর পরিমাণেও নেওয়া উচিত অল্প। কয়েক ফোঁটার থেকে বেশি নারকেল তেল মুখে মাখলে ত্বকের ক্ষতি হতে পারে।

Disclaimer: বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ এবং মতামতের ভিত্তিতে লেখা হয়েছে প্রতিবেদনটি। ব্যক্তিবিশেষে এর ফল হতে পারে ভিন্ন।

Avatar

আমি নীরাজনা নাগ। HoopHaap-এর একজন সাংবাদিক। বিগত চার বছর ধরে এই পেশার সঙ্গে যুক্ত রয়েছি। নিজের লেখার মাধ্যমে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাঠকদের কাছে পৌঁছে দিতে চাই