whatsapp channel

‘প্রত্যেক নায়িকার সঙ্গে বাধ্যতামূলক’, শ্লীলতাহানির দৃশ্যে কেঁদে ফেলেছিলেন মাধুরী দীক্ষিত

আশি নব্বইয়ের দশকের শুরুর দিকে বলিউডের খ্যাতনামা ভিলেন ছিলেন রঞ্জিত (Ranjeet)। অন স্ক্রিনে নায়িকাদের সঙ্গে দুর্ব্যবহার, তাঁদের চরিত্র হনন বেশিরভাগ ছবিতেই লক্ষণীয় হয়ে উঠেছিল। এমন বহু দৃশ্যের শুটিং তাঁকে করতে…

Avatar

Nirajana Nag

আশি নব্বইয়ের দশকের শুরুর দিকে বলিউডের খ্যাতনামা ভিলেন ছিলেন রঞ্জিত (Ranjeet)। অন স্ক্রিনে নায়িকাদের সঙ্গে দুর্ব্যবহার, তাঁদের চরিত্র হনন বেশিরভাগ ছবিতেই লক্ষণীয় হয়ে উঠেছিল। এমন বহু দৃশ্যের শুটিং তাঁকে করতে হয়েছিল যা তাঁর নিজের কাছেও ছিল অস্বস্তিকর। সম্প্রতি বলিউড সিনেমার একটি অন্ধকার দিকের কথা ফাঁস করেছেন তিনি যা নিয়ে শোরগোল পড়ে গিয়েছে নেট পাড়ায়।

মাধুরী দীক্ষিতের (Madhuri Dixit) সঙ্গে শ্লীলতাহানির দৃশ্যের শুটিং এর সময়কার ভয়াবহ অভিজ্ঞতার কথা ফাঁস করেছেন রঞ্জিত। ‘প্রেম প্রতিজ্ঞা’ ছবির শুটিং করার সময় ঘটেছিল এই ঘটনা। এক সাক্ষাৎকারে রঞ্জিত জানান, মাধুরীর সঙ্গে তাঁর একটি দৃশ্য ছিল। তিনি অপেক্ষা করছিলেন অভিনেত্রীর জন্য। কিন্তু কী ঘটছে সেটা তাঁকে কেউ জানায়নি। পরে তিনি একজন বাঙালি শিল্প পরিচালকের কাছ থেকে বিষয়টা জানতে পারেন।

সিনেমার গল্প অনুযায়ী, মাধুরী ছিলেন গরীব ঘরের মেয়ে। তাঁর বাবা ঠেলাগাড়ি টানতেন। ওই ঠেলাগাড়িতেই শ্লীলতাহানির দৃশ্যটি শুট হওয়ার কথা ছিল। মাধুরী প্রথমটা একেবারেই রাজি হননি দৃশ্যটি করতে। তিনি কান্নাকাটি শুরু করে দিয়েছিলেন। তবে শেষমেষ মাধুরী রাজি হন।

রঞ্জিত আরো জানান, বীরু দেবগণ ছিলেন ওই ছবির ফাইটিং মাস্টার। তিনি বলেছিলেন, ক্যামেরা ঘুরিয়ে রাখা হবে। মাঝখানে যেন দৃশ্য না কাটা হয়। রঞ্জিত জানান, বীরু দেবগণ এও বলেছিলেন, ‘শ্লীলতাহানি আমাদের কাজের একটি অংশ। ভিলেন খারাপ নয়। প্রত্যেক নায়িকার সঙ্গে এটি বাধ্যতামূলক ছিল’। রঞ্জিতের এই মন্তব্য বিতর্ক সৃষ্টি করেছে একাংশে। বলিউডি ইন্ডাস্ট্রিকে তীব্র ধিক্কার দিয়েছেন নেটিজেনদের একাংশ। বিশেষ করে আগেকার দিনের ছবিতে নায়িকাদের লাঞ্ছনার দৃশ্য আরো বেশি করে দেখানো হত বলে মন্তব্য করেছেন অনেকে। আবার কেউ কেউ বলেছেন, এখন বলিউড ছবি আগের তুলনায় উন্নত হয়েছে। তবে ইন্ডাস্ট্রির অন্দরে যে কী চলে তা অনেক সময়ই প্রকাশ্যে আসে না।

Avatar

আমি নীরাজনা নাগ। HoopHaap-এর একজন সাংবাদিক। বিগত চার বছর ধরে এই পেশার সঙ্গে যুক্ত রয়েছি। নিজের লেখার মাধ্যমে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাঠকদের কাছে পৌঁছে দিতে চাই