whatsapp channel

Dadagiri: ‘আমি যেটা আমার বরের খেয়ে থাকি’, দাদাগিরিতে সৌরভের সামনেই বেফাঁস ত্বরিতা!

জি বাংলায় সিরিয়ালের দিক দিয়ে যেমন এগিয়ে রয়েছে 'জগদ্ধাত্রী' (Jagadhatri), তেমনি নন ফিকশন শোয়ের ক্ষেত্রে জনপ্রিয়তার দিক দিয়ে এগিয়ে থাকবে 'দাদাগিরি' (Dadagiri)। সদ্য শুরু হয়েছে দাদাগিরির নতুন সিজন। বেশ কিছু…

Avatar

Nirajana Nag

জি বাংলায় সিরিয়ালের দিক দিয়ে যেমন এগিয়ে রয়েছে ‘জগদ্ধাত্রী’ (Jagadhatri), তেমনি নন ফিকশন শোয়ের ক্ষেত্রে জনপ্রিয়তার দিক দিয়ে এগিয়ে থাকবে ‘দাদাগিরি’ (Dadagiri)। সদ্য শুরু হয়েছে দাদাগিরির নতুন সিজন। বেশ কিছু নতুন চমক নিয়ে হাজির হয়েছেন সঞ্চালক সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়। নতুন সিজনটি প্রথম থেকেই টিআরপিতে ছক্কা হাঁকাচ্ছে। এবার দুই চ্যানেল টপার হতে চলেছে এক জায়গায়। নিজের গোটা পরিবারকে নিয়ে দাদাগিরি খেলতে আসছে ‘জগদ্ধাত্রী’।

জমজমাট পর্বের প্রথম প্রোমো প্রকাশ্যে আসতেই হয়ে গিয়েছে ভাইরাল। একটি ছোট্ট টুইস্ট মেজাজই বদলে দিয়েছে প্রোমোর। দাদার প্রশ্নের এমন উত্তর দিয়েছেন ‘জগদ্ধাত্রী’র প্রীতি যে সৌরভ তো চমকেছেনই, বিষম খাওয়ার জোগাড় নেটিজেনদেরও। ব্যাপারটা কী? আসলে ভাইরাল হওয়া প্রোমোতে প্রীতি ওরফে ত্বরিতা চট্টোপাধ্যায়কে বলতে শোনা যায়, ‘আমি যেটা আমার বরের খেয়ে থাকি’!

আসলে দাদাগিরি যারা দেখেন তারা খুব ভালো ভাবেই জানেন, প্রথম রাউন্ডেই একটি ‘গেসিং গেম’ খেলা হয়, যেখানে একের পর এক ক্লু থেকে অনুমান করে উত্তর বলতে হয়। এই খেলার শুরুতে সৌরভ একটি ক্লু দেন, ‘এটি খাওয়া হয়ে থাকে’। এর উত্তরেই ত্বরিতা বলে ওঠেন, ‘আমি যেটা বরের আমার বরের খেয়ে থাকি, মাথা। ওটা অধিকার আছে’। পালটা সৌরভ বলে ওঠেন, এটা দারুণ বলেছেন ত্বরিতা। শুধু বরদেরই কোনো অধিকার নেই। দুজনের কথায় হাসির রোল ওঠে শোতে।

প্রসঙ্গত, জগদ্ধাত্রী সিরিয়ালে জগদ্ধাত্রীর ননদ প্রীতির ভূমিকায় অভিনয় করছেন ত্বরিতা। ধূসর চরিত্রটিতে তাঁর অভিনয় বেশ নজর কাড়ছে দর্শকদের। ব্যক্তিগত জীবনে তিনি কিংবদন্তি অভিনেতা তরুণ কুমারের পরিবারের সদস্য বৈবাহিক সূত্রে। তরুণ কুমারের নাতি সৌরভ বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে বিয়ে হয়েছে তাঁর। টেলিপাড়ার বাস্তবের জনপ্রিয় জুটিদের মধ্যে অন্যতম ত্বরিতা সৌরভ। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, চলতি সপ্তাহেই জগদ্ধাত্রী টিমের পর্বটি সম্প্রচারিত হবে টেলিভিশনে। পর্বটি যে বেশ আকর্ষণীয় হতে চলেছে তা বলার অপেক্ষা রাখে না।

Avatar

আমি নীরাজনা নাগ। HoopHaap-এর একজন সাংবাদিক। বিগত চার বছর ধরে এই পেশার সঙ্গে যুক্ত রয়েছি। নিজের লেখার মাধ্যমে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাঠকদের কাছে পৌঁছে দিতে চাই